সর্বশেষ :
Thu, 21 Sep, 2017

 
নারায়ণগঞ্জ জেলার দূর্ঘটনা প্রবন সড়কগুলো নিরাপদ রাখার কোন উদ্যোগ নেই বাড়ছে হতাহতের সংখ্যা, নেই ট্রমা সেন্টার, অপর্যাপ্ত ফুট ওভার ব্রীজ
Saturday, 24 January 2015 21:39

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট এনগঞ্জ ২৪ ডটকম: নারায়ণগঞ্জ জেলার দূর্ঘটনা প্রবন সড়ক গুলো নিরাপদ রাখার কোন পদক্ষেপ বা কার্যকর সুব্যবস্থার উদ্যোগ নেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের। ফলে সড়ক দূর্ঘটনায় হতাহতের সংখ্যা দিন দিন বেড়ে মানুষের জীবনকে নিত্যদিন ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলেছে। নারায়ণগঞ্জ জেলার সড়ক-মহাসড়ক ব্যবস্থাপনা নেই সুষ্ঠু অপরিকল্পিত ট্রাফিক ব্যবস্থা। আর এ জন্য ঘাটতি রয়েছে স্বল্প ও র্দীঘ মেয়াদী পরিকল্পনা বলে একটি সূত্র জানিয়েছে। এছাড়া নেই ট্রমা সেন্টার। ফলে এ জেলার হতাহতের সংখ্যা সড়ক দূর্ঘটনায় অবনতি শীল পর্যায়ে থেকে নিরাপত্তাহীনতার চাদরে মুড়ে রেখেছে। যা দিন দিন মানুষের উদ্বেগ আর উৎকন্ঠার মুখ্য হয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের মাত্রাকে তীব্রতর করেছে। সে সাথে বাড়ছে পঙ্গুত্বের শিকার মানুষগুলোর অসহায়ত্ব ও দীর্ঘশ্বাস। এ দীর্ঘশ্বাস জেলার সড়কগুলো থেকে শুরু করে অলিগলি পর্যন্ত।

সূত্র জানায়: নারায়ণগঞ্জ জেলায় দূর্ঘটনা প্রবন স্থান সমূহের পাশাপাশি রয়েছে সর্তক নির্দেশনার অভাব প্রশিক্ষন ও লাইসেন্স বিহীন চালক, অধিক গতি এবং ধারণ ক্ষমতার বেশি মালামাল ও যাত্রী পরিবহন, মহাসড়কে একই লেনে উচ্চ গতি ও স্বল্প গতির যানবাহনের চলাচল, মহাসড়কে অস্পষ্ট ট্রাফিক সাইন ও লেন মার্কিং, জনবহুল স্থানে জেব্রা ক্রসিং ও ফুট ওভার ব্রীজের অভাব, ফুটপাতের অবৈধ দখল ও গাড়ি পার্কিং। এছাড়া পরিবহন সেক্টরে আচরণ বিধির অনুপস্থিতি ও দূর্ঘটনায় আহতদের দ্রুত উদ্ধার ও চিকিৎসার জন্য ট্রমা সেন্টারের অভাব। এছাড়া একটি বেসরকারি সংস্থার জরিপেও একই ধরনের তথ্য আরো বিশদভাবে উল্লেখ রয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ জেলার মোট ২১ টি প্রধান দূর্ঘটনা প্রবন স্থান রয়েছে। এ গুলো হচ্ছে: চাষাড়া মোড়, পঞ্চবট্টি, শিবু মার্কেট, জালকুড়ি, ভূইঘর, সাইনবোর্ড এলাকা, সানারপাড়, চিটাগাং রোড, আদমজী, কাঁচপুর, ইসদাইর, তারাব বিশ্ব রোড, বরপা, ভুলতা গাউছিয়া পয়েন্ট, গোলাকান্দাইল, আধুরীয়া সাওঘাট সিএনজি পাম্প স্পষ্ট, কাঞ্চন বাজার, লাঙ্গলবন্দ, মোগড়াপাড়া ও মেঘনাঘাট এলাকার স্বল্প দূরত্বের স্থান সমূহ। একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র এ তথ্য জানিয়ে বলেছে, চাষাড়া, খানপুর, পঞ্চবটি, সাইনবোর্ড, চিটাগাং রোড, কাঁচপুর, তারাব বিশ্বরোড, রুপসি, গোলাকান্দাইল ও কাঞ্চন এলাকায় সংযোগ সড়কে সর্তক নির্দেশনার অভাব রয়েছে। চাষাড়া মোড়, পঞ্চবটি, ইসদাইর, শিবু মার্কেট, সাইনবোর্ড এলাকা আদমজী বরপা স্কুলের সামনে, ভুলতা গার্মেন্টস সহ অন্যান্য জনবহুল স্থানে জনগণের রাস্তা পারাপারের জন্য কোন জেব্রা ক্রসিং ও ফুটওভার ব্রীজ নেই। ট্রাফিক সাইন অস্পষ্ট ও লেন মার্কিং নেই এমন স্থান গুলো হচ্ছে: জালকুড়ি, সাইনবোর্ড এলাকা, ইসদাইর, সানারপাড়, চিটাগাং রোড, আদমজী, কাঁচপুর, তাবার বিশ্বরোড, বরপা, ভুলতা-গাউছিয়া পয়েন্ট, গোলাকান্দাইল, আধুরীয়া, সাওঘাট সিএনজি পয়েন্ট এলাকা ও কাঞ্চন বাজার সহ অন্যান্য ঝুঁকিপূর্ণ পয়েন্ট।

সড়ক দূর্ঘটনায় আহতদের দ্রুত উদ্ধার ও চিকিৎসার জন্য আট কিলোমিটারের লিংক রোডে (চাষাড়া থেকে সাইন বোর্ড এলাকা) ও গুরুত্বপূর্ণ ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশাপাশি ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে কোন ট্রমা সেন্টার নেই। সড়ক-মহাসড়কে চলাচলকারি সব ধরনের যানবাহনের অধিকাংশ চালকের লাইসেন্স নেই। এরা স্বল্প বয়সী ও অদক্ষ। এছাড়া নারায়ণগঞ্জ নগরীর অধিকাংশ সড়ক, পঞ্চবট্টি হয়ে ফতুল্লা থেকে পুরাতন নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা সড়কের শ্যামপুর পর্যন্ত, কাঁচপুর, বরাব স্ট্যান্ড, রূপসী, বরপা, ভুলতা গাউছিয়া, মোগড়াপাড়া ইত্যাদি স্থানে সড়কের দুই পাশের বিভিন্ন স্থানে রাস্তার পাশে গাড়ি পার্কিং ও ফুটপাত অবৈধ দখলের ফলে যানজটের সৃষ্টি হয় এবং দূর্ঘটনা ঘটে। একই সাথে জেলার কোন সড়কে টেকসই যাত্রী ছাউনী না থাকায় জন সাধারণ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সড়ক ও মহাসড়কের চলাচলকারী গণ পরিবহনে উঠা-নামা করতে হয়।

সড়ক দূর্ঘটনায় নিহতদের মধ্যে প্রথম সারিতে রয়েছে পথচারীরা আর। হেমলেটবিহীন মোটর সাইকেল চালক ও সাইক্লেস্টিক। এরপর ধাক্কা মেরে পালিয়ে যাওয়া মুখোমুখি সংঘর্ষে হতাহতের প্রচুর সংখ্যা। সড়ক দূর্ঘটনা সংঘটনের জন্য মূল ও প্রধান দায়ী বাস ও ট্রাক। এরপর অন্যান্য ধীর গতির যানবাহন। এছাড়া পথচারীদের অসর্তকতা ও ঝুঁকি নিয়ে সড়ক পারাপার ও সড়ক দূর্ঘটনার অন্যতম একটি প্রধান কারণ বলে বিশেষজ্ঞমহলের অভিমত। এই মহলের আরো অভিমত হচ্ছে: চালক, পথচারী ও যাত্রীদের আচরণ বিধি এমনটাই যে এদের সকলেই যে কোন মূল্যে দ্রুত গন্তব্যে পৌঁছানোর জন্য সচেষ্ট থাকে যা বড় বড় দূূর্ঘটনার অন্যতম একটি কারণ। এছাড়া গাড়ির মালিক পক্ষ সব সময় অধিক লাভের জন্য চালকদের চাপের মুখে রেখে একটি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে নিদিষ্ট সংখ্যক ট্রিপ সম্পন্ন করার লক্ষ্যমাত্রা দিয়ে থাকে আর ট্রাফিক সিগন্যাল ও যানজটের কারণে যখন মালিক পক্ষের দেওয়া সময় সীমা শেষ হতে চলে তখন চালক গণ মরিয়া হয়ে গাড়ি চালায়, কারণ তাদের চাকরি হারানোর ভয় থাকে। এছাড়া চালকগণ যখন চুক্তি ভিত্তিক গাড়ি চালায়, তখন তারাও অল্প সময়ে বেশি ট্রিপ দিয়ে অধিক আয়ের জন্য বেপরোয়া দ্রুত গতিতে গাড়ি চালায় যা সড়ক দূর্ঘটনার গুরুত্বপূর্ণ কারণ। আর চালকদের একটি অংশের ঝিমুনি ও ঘুম কাতুরে প্রবনতা ও সড়ক দূর্ঘটনায় মাত্রা যোগ করে।

সব মিলিয়ে সড়ক অবকাঠামোর নিন্মমান ক্রটিপূর্ণ যানবাহন ও পথচারীদের অসর্তকতা মানবসৃষ্ঠ দূর্যোগ বলে পরিচিত সড়ক দূর্ঘটনার মৌলিক কারণ হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আছে এ জেলায়।

 

এনগঞ্জ২৪ ডট কমে প্রকাশিত/প্রচারিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট অনুমতি সাপেক্ষে ব্যবহার করা যাবে।

সকল শিরোনাম
 
 

সম্পাদক : এস এম ইকবাল রুমি
বার্তা ও বাণিজ্যিক কাযার্লয় : ইয়াজ উদ্দিন ভবন (৪র্থ তলা), এ.সি ধর রোড, কালীর বাজার, নারায়ণগঞ্জ- ১৪০০।

নিউজ রুমঃ ০১৯৮১৬০৯২৫১, ০১৭৭৭৪১২৭৪৪ ই-মেইলঃ nganj24editor@gmail.com